জুম ভিডিও কনফারেন্সে সাংবাদিক বৈঠক করে করোনা মোকাবিলায় বিজেপিকে এক হাত নিলেন অর্পিতা

নিজস্ব সংবাদদাতা

0

বালুরঘাটঃ করোনা মোকাবিলায় মানুষের পাশে না থেকে ‘ভুয়ো’ খবর ছড়িয়ে রাজনীতি করছে বিজেপি, এমনটাই অভিযোগ তুললেন তৃণমূলের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা সভাপতি তথা রাজ্যসভার সাংসদ অর্পিতা ঘোষ। বুধবার জুম কনফারেন্সের মাধ্যমে জেলার সাংবাদিকদের সঙ্গে মুখোমুখি হয়ে পরিসংখ্যান তুলে ধরে বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়ান অর্পিতা। অর্পিতার দাবি, জেলায় করোনা মোকাবিলায় শুরু থেকে ত্রাণ বিলির কাজ করেছে তৃণমূল। জেলার ৬০ হাজার মানুষকে দলের তরফে ত্রাণ বিলি করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন। পাশাপাশি সরকারি ভাবে খাদ্য দফতর থেকে রেশন দেওয়ার কাজ করা হয়েছে। এছাড়াও, দলীয়ভাবে হাসপাতালে আসা রোগীর পরিজনদের মধ্যে খাবার বিলি করা হয়েছে। সব্জি এটিএম তৈরি করে গরীব বাসিন্দাদের মধ্যে আনাজ বিলি করা হয়েছে। এমনকি বয়স্ক বাসিন্দাদের বাড়িতে গিয়ে খাবার বিতরণ করা হয়েছে বলে অর্পিতা জানিয়েছেন। তাঁর দাবি, জেলার প্রত্যেকটি ব্লকে দলের তরফে এইভাবে বাসিন্দাদের সাহায্য করা হয়েছে। কিন্তু বিজেপি ত্রাণ বিলি না করেই মিথ্যে অভিযোগ তুলে মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন বলে তিনি অভিযোগ তোলেন। অর্পিতা বলেন, “আমরা দলীয়ভাবে যেমন মানুষের পাশে ত্রাণ নিয়ে দাঁড়িয়েছি। তেমনি আমাদের রাজ্য সরকারও সরকারিভাবে বাসিন্দাদের সাহায্য করেছে। বিজেপি কিন্তু কোথাও ত্রাণ বিলি করেনি। বালুরঘাট ও ঠ্যাঙ্গাপাড়ায় সামান্য সামান্য কিছু বিতরণ করার পরে ত্রাণ বিলি করতে দেওয়া হচ্ছেনা বলে মিথ্যে অভিযোগ তোলেন। অনুমতি ছাড়াই সীমান্ত এলাকায় যাবার চেষ্টা করে মানুষের নজর কাড়তে হাস্যকর অভিযোগ তোলে তারা। বিজেপির এই কায়দা মানুষ ধরে ফেলেছেন।” অর্পিতার আরও অভিযোগ, এইসব মিথ্যে অভিযোগ ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে বিজেপি রাজ্য সরকারকে কালিমালিপ্ত কর‍তে চাইছে। মানুষই এর জবাব দেবে বলে তার দাবি। বিজেপি যদিও তৃণমূলের এই যুক্তি মানতে চায়নি। বিজেপির সাংসদ সুকান্ত মজুমদার বলেন, “আমরা কোনও মিথ্যে অভিযোগ তুলিনি। জেলার বাসিন্দারা সবটাই দেখেছেন।” এদিকে, এদিনের মিটিং থেকে অর্পিতা আরও জানান, আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে ছোট ছোট বৈঠক করে দলের সংগঠনকে মজবুত করার কাজ করা হবে। পাশাপাশি, এক প্রাক্তন নেতার দলে যোগদানের বিষয়েও জল ঢেলে অর্পিতা জানান, এসব পরিকল্পিত গুজব। এর সত্যতা নেই।

Leave A Reply

Your email address will not be published.